ঘুমের সম্পর্কে এই জিনিসগুলো জানলে আপনি অবাক হবেন!

আপনার ঘুম এবং আপনার স্বপ্ন আপনাকে creative তৈরী করে এমন কিছু idea এমন কিছু thought যা হয়তো আপনার জীবনকে পরিবর্তন করতে পারে সেই সকল informative idea এবং thought গুলি ফ্যাক্ট নাম্বার টেন.


ঘুমের সম্পর্কে এই জিনিসগুলো জানলে আপনি অবাক হবেন!


 শুনতে হয়তো আপনাকে অদ্ভুত লাগবে কিন্তু এটা একেবারেই সত্য যে কিছু কিছু ব্যক্তি নিজের চোখকে খোলা রেখেও ঘুমাতে পারে. হ্যাঁ, আপনি ঠিকই শুনেছেন. এই পৃথিবীর দুই পার্সেন্ট ব্যক্তি এমনও রয়েছে যারা চোখ খোলা রেখেও ঘুমাতে পারে. যখন ব্যক্তি ঘুমায় তো আপনি তাকে দেখে বলতেই পারবেন না যে সে ঘুমাচ্ছে. নাকি জেগে রয়েছে. 



মেডিকেল ফিল্ডে এই ধরনের স্পেশ্যাল power কে বলা হয়. নকটার্নাল ল্যাগপথেলামস, আর ইন্টারেস্টিং কথা হলো এই যে যাদের মধ্যে এই নকটার্নের ল্যাঘপথ থালামাস রয়েছে তাদের মধ্যে থেকে ফিফটি পার্সেন্ট লোক এটা জানতেই পারে না।


 যে তাদের সাথে এমন কিছু ইভেন্ট ঘটছে. আমেজিং, তাই না? ফ্যাক্ট নাম্বার নাইন, আচ্ছা বলুনতো যে ঘুম এবং খাবার অর্থাৎ স্লিপ এবং ফুডের মধ্যে থেকে কোনটি বেশি জরুরী আমাদের শরীরের জন্যে.


আরও পড়ুনঃ

কেন আমরা স্বপ্ন দেখি?

ঘুমানোর আগে যেই কাজ গুলো অবশ্যই করবেন। নাহলে বিপদ!

পড়াশুনা মনে রাখার সবচেয়ে সহজ উপায়


 তো আপনার কি answer হবে? অনেকেই হয়তো বলবেন যে food বা খাবার বেশি কিন্তু আপনি কি জানেন যে food depression এর থেকেও কয়েকশো গুণ বেশি ভয়ানক এবং ক্ষতিকারক হলো slip depression হ্যাঁ আমাদের শরীরের এবং মস্তিষ্কের জন্যে খাবারের থেকেও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো ঘুম কিভাবে তো চলুন কিছু world record কে আমরা জেনে নিই,



 সব থেকে বেশি দিন বা দীর্ঘদিন পর্যন্ত কিছু না খাওয়ার record রয়েছে তিনশো বিরাশি দিনের. এঙ্গুজ বারবেরির দ্বারা. এবং সব থেকে বেশি দিন, 



অর্থাৎ দীর্ঘ সময় ধরে না ঘুমানোর record রেন্ডি গার্ডেনারের নামে, যা হলো কেবলমাত্র এগারো দিন পঁচিশ মিনিট. তাহলে নিশ্চয়ই এবার আপনি জানতে পারলেন যে, ফুডের থেকেও কত বেশী ইম্পরট্যান্ট হল গুম আমাদের বডির জন্যে. 



ফ্যাক্ট নাম্বার এইট. যেমন ধরণেরই সিচুয়েশন হোক না কেন, যেমন ধরণের environment-ই হোক না কেন, কিছু কিছু লোক রয়েছে, যারা যে কোন situation এ ঘুমিয়ে যেতে পারে. আর এই ধরনের ব্যক্তিদের অনেকে good sleeper ও বলে থাকে. 



কিন্তু reality একটু অন্যরকমই. যেকোনো ধরনের Situation বা environment এ ঘুমিয়ে পড়া আসলে একপ্রকার slip problem. এই ধরনের ব্যক্তিদের মধ্যে excesive day, times leapings এর প্রবলেম দেখা দেয়.



 যা ভবিষ্যতে গিয়ে ইনসুমনিয়ায় কনভার্ট হয়ে যায়. ফ্যাক্ট নাম্বার সেভেন. এই পৃথিবীতে যত প্রকারের ম্যামেলস অর্থাৎ স্তন্যপায়ী প্রাণী রয়েছে তারা তখনই ঘুমিয়ে পরে যখন তাদের body এবং mind ঘুমানোর জন্য signal দেয়. 



সকল memal রাই তাদের ব্রেন এবং body র সিগন্যাল দেওয়া মাত্রই ঘুমিয়ে পরে. কিন্তু আপনি কি জানেন যে এই পৃথিবীর সকল স্তন্য বাই প্রাণীদের মধ্যে থেকে এক প্রাণী এমনও রয়েছে যারা নিজের ঘুমকে ইচ্ছে অনুসারে delay করতে পারে. আর সেই প্রাণী হল মানুষ.



 মানুষ ব্রেন এবং body ঘুমিয়ে পড়া সিগন্যাল দেওয়া সত্ত্বেও নিজের ঘুমকে ইচ্ছে অনুসারে delay করতে পারে that's amazing. Fact number six এটা তো বুঝলাম যে মানুষ তার ঘুমকে নিজের ইচ্ছে অনুসারে delay করতে পারে. কিন্তু এর effect কি কি হতে পারে সেটাও আমাদের জেনে রাখা উচিত তাই না,



সারারাত ধরে কাজ করা লেট নাইট অবধি পড়াশোনা করা. গেম খেলা, ফোন করা, এগুলি খুবই কমন কথা মনে হয়. কিন্তু আপনি জেনে অবশ্যই অবাক হবেন যে পনেরো থেকে ষোল ঘন্টার ব্যবধানে না ঘুমালে তা আপনার body এবং brain এ খুবই খারাপ প্রভাব ফেলে.



 আর এর effect আপনি clearly দেখতে পাবেন নিজের মধ্যে. পনেরো থেকে ষোলো ঘন্টা ব্যবধানে না ঘুমালে আপনি নিজের মধ্যে anxiety stress Lazines এই সকল জিনিস গুলি fill করতে পারবেন. এছাড়াও মেমোরি ট্রাভেল মেমোরি লস স্লো থিংকিং, 



ব্লাক আউট. এই লক্ষণ গুলিও আপনার মধ্যে দেখা দেবে. ফ্যাক্ট নাম্বার ফাইভ. সাইন্সের মতে একজন ব্যক্তির প্রতি রাতে ছয় থেকে সাত ঘণ্টার ঘুমের প্রয়োজন হয়. এতে ব্যক্তির ব্রেন সেল গুলি প্রপার ভাবে কাজ করতে পারে. কিন্তু তার মানে এ নয় যে আপনি যত বেশি ঘুমাবেন আপনার ব্রেন তত বেশি ভালো থাকবে.



 এমনটা নয়. ওয়েস্টার্ন ইউনি ইউনিভার্সিটি কানাডার ব্রেন এন্ড মাইন্ড ইনস্টিটিউটের একটি রিসার্চ অনুযায়ী যে সকল ব্যক্তিরা ছয় বা সাত ঘন্টার থেকেও কম ঘুমায় সেই সকল ব্যক্তিদের মেমোরিটেশন পাওয়ার এবং cognetive functioning সাধারণ ব্যক্তিদের কোনায় অনেক কম হয়ে যায় আর ঠিক এরই অপর দিকে যে সকল ব্যক্তিরা ছয় বার সাত ঘন্টার থেকেও বেশি ঘুমায়। 



সেই সকল ব্যক্তিদেরও cognetive functioning memory এবং reasoning skills ও সাধারণ ব্যাক্তিদের তুলনায় কম হয়েছে অর্থাৎ যেভাবে কম ঘুম আমাদের শরীর এবং মস্তিষ্কের জন্য খারাপ একই রকম ভাবে বেশি ঘুমও আমাদের শরীর এবং মস্তিষ্কের জন্য ভালো নয়. কারণ এর ফলে আমাদের ব্রেন সেলস damage হয়ে যায়. Fact number four যারা জব করে বা যারা সারাদিন কাজ করে তাদের কাছে দিনের বেলা nap নেওয়া,



স্বপ্নের মতো মনে হয়. কারণ সারাদিনে এরা সময়ই পায় না যে একটি nap নেবে. কিন্তু science বলে যে দিনে মানে দুপুর বেলা কুড়ি থেকে তিরিশ মিনিট power nap আপনার cognetive performance কে আরো improve করে দেয় এবং আপনার focus পাওয়ার কেও improve করে দেয়. আর এই কুড়ি থেকে তিরিশ মিনিটের power nap আপনার mind কে refresh করে দেয়.



তবে হ্যাঁ, এই map যেন কুড়ি থেকে তিরিশ মিনিটেরই হয়, কারণ যদি আপনি কুড়ি থেকে তিরিশ মিনিটের থেকেও বেশি ঘুমান, তাহলে এটি আপনার রাতের ঘুমকে disturb করে দেবে. Fact number three, অনেক parents রাই বলে থাকে,



যে teenager রা নাকি ইচ্ছে করে মোবাইলের কারণ রাতে দেরিতে ঘুমায় তো আপনার কি মনে হয়? এই কথাটি কতটা সত্য? Well একটি scientific studies রা পাওয়া গেছে যে seventy two পার্সেন্ট teenager রা রাতে পর্যাপ্ত মাত্রায় ঘুমায় না.



তো প্রশ্ন হলো এই যে teenager রা কি করে late night অব্দি জেগে থাকে, তাদের জেগে থাকার পেছনের আসল কারণ কি smartphone? আসলে night house দের, 



I mean teenager দের এই let night অব্দি জেগে থাকার ব্যাপারটি তাদের ইচ্ছে অনুসারে নয়, বরং তাদের biological changes এর কারণে হয়ে থাকে ভিউআরটি বা বয়ঃসন্ধের কারণে টিনেজাররা চাইলেও তাড়াতাড়ি ঘুমাতে পারে না. 




আর যদিও বা তাড়াতাড়ি বিছানায় শুয়ে পরে. তবুও তাড়াতাড়ি ঘুম আসতে চায় না. আর আপনার এটা জেনে রাখা উচিত যে এটা কোন স্লিপ প্রবলেম নয়. এটা স্বাভাবিক ব্যাপার, ফ্যাক্ট নাম্বার টু, আপনি জেনে হয়তো অবাক হবেন,



যে একজন ব্যাক্তি তার জীবনের প্রায় পঁচিশ বছর ঘুমিয়ে কাটিয়ে দেয়. অর্থাৎ সারা জীবনে প্রায় one third অংশ আমরা ঘুমিয়েই কাটিয়ে দিই.



ফ্যাক্ট নাম্বার ওয়ান আপনার ঘুম এবং আপনার স্বপ্ন আপনাকে ক্রিয়েটিভ তৈরী করে এমন কিছু আইডিয়া এমন কিছু thought যা হয়তো আপনার জীবনকে পরিবর্তন করতে পারে সেই সকল ইনফরমেটিভ আইডিয়া এবং thoughts স্বপ্নেই আমাদের মধ্যে আসে, 




হ্যাঁ, আপনি ঠিকই শুনেছেন. তো বন্ধু হোমের এই দশটি ফ্যাক্টের মধ্যে থেকে আপনাকে কোন ফ্যাক্টসটি সবথেকে বেশি ইন্টারেস্টিং বলে মনে হয়েছে? 




তার নিচে কমেন্ট box এ অবশ্যই জানাবেন, পোষ্ট টি ভালো লেগে থাকলে শেয়ার অবশ্যই করবেন, যাতে এই interesting knowledge আপনার প্রিয় বন্ধুর কাছেও পৌঁছায়. আপনাদের সঙ্গে আবার দেখা হবে নেক্সট পোষ্টে। ধন্যবাদ


0 Response to "ঘুমের সম্পর্কে এই জিনিসগুলো জানলে আপনি অবাক হবেন!"

Post a Comment

⭕Dont Spam❗

Iklan Atas Artikel

Iklan Tengah Artikel 1

Iklan Tengah Artikel 2

Iklan Bawah Artikel